স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা ভাঙাড়ির দোকানে বিক্রি করলেন ২৬ মণ নতুন বই

0
970

কেজি দরে ভাঙাড়ির দোকানে বই বিক্রির অভিযোগ উঠেছে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে মনিমোহন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে।  তিনি মাধ্যমিক স্তরের প্রায় ২৬ মণ সরকারি নতুন বই বিক্রি করেছেন বলে জানা গেছে। 

উপজেলার জলিরপাড় ইউনিয়নের কলিগ্রামে অবস্থিত ঐ স্কুলের অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষিকার নাম মিনতি বৈদ্যে।

গতকাল বৃহস্পতিবার(৭ জুলাই)  বিকালে কলিগ্রাম ভাঙাড়ি ব্যবসায়ী আশুতোষ বালার কাছে ২০২১ ও ২০২০ সালের বইগুলো বিক্রি করা হয়। এই দুই সালের বিক্রি করা এসব বইয়ের মূল্য প্রায় ২৬ হাজার টাকার।

বই বিক্রির কথা স্বীকার করে প্রধান শিক্ষিকা মিনতি বৈদ্য বলেন, আমি বই বিক্রি করেছি। তবে এখন ফেরত নিয়ে আসব।

স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার বিকালে প্রধান শিক্ষিকা মিনতি বৈদ্য মাধ্যমিক স্তরের ২০২১ ও ২০২০ সালের ষষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণির ২৬ মন নতুন বই ভাঙাড়ি ব্যবসায়ী আশুতোষ বালার দোকানে ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেন। পরে এমন খবর শুনতে পেয়ে স্থানীয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে বিষয়টি জানান। পরে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বইগুলো ওই বিদ্যালয়ে হেফাজতে রাখার জন্য প্রধান শিক্ষিকাকে নির্দেশ দেন।

এ বিষয়ে ভাঙাড়ি ব্যবসায়ী আশুতোষ বালা বলেন, মনিমোহন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মিনতি বৈদ্যের কাছ থেকে বইগুলো কিনেছি।

মুকসুদপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. সাহাদাত হোসেন মোল্লা বলেন, আমি আপাতত বইগুলো বিদ্যালয়ে হেফাজতে রাখার জন্য প্রধান শিক্ষিকাকে নির্দেশ দিয়েছি। পরে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here