তবে কি ফের ক্ষমতায় আসবেন ইমরান খান?

0
672

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টি পাঞ্জাবের স্থানীয় উপনির্বাচনে তুমুল বিজয় অর্জন করেছে – দেশের বৃহত্তম এবং জনবহুল প্রাদেশিক নির্বাচনে ২৯টি আসনের মধ্যে ১৫ টিতে জয় পেয়েছেন ইমরান খান। আর এতেই নতুন করে যুক্ত হচ্ছে আরেক রাজনৈতিক প্রত্যাবর্তনের সম্ভাবনা। যার কেন্দ্রে আছেন ক্রিকেটার থেকে প্রধানমন্ত্রী বনে যাওয়া ইমরান।

ইমরানের এমন ফলাফল বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফের ক্ষমতাসীন জোটের জন্য একটি ধাক্কাই বটে। উপনির্বাচনের আগে পাঞ্জাব ছিল শরীফের পাকিস্তান মুসলিম লীগের সমর্থনের ঘাঁটি।  পাঞ্জাবের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী, শাহবাজ শরিফের ছেলে হামজা শাহবাজ। এর আগে স্বয়ং শাহবাজ শরিফই ছিলেন প্রদেশটির মুখ্যমন্ত্রী।

বিশ্লেষকরা মনে করেন, দেশটির চলমান সংকট শুরু হয়েছিল নিম্নমুখী অর্থনৈতিক পরিস্থিতি, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি এবং ভর্তুকি অপসারণের মধ্য দিয়ে। আর তা শেষ হয় দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বহিরাগত হস্তক্ষেপের মধ্য দিয়ে আর তার পরবর্তী উপনির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাশিত ছিল।।

শুরু থেকেই পার্লামেন্টে ইমরান খানের কিছু মিত্র তাদের আনুগত্য পরিবর্তন করে এবং বিরোধীদের সমর্থন দেয়। বিপরীতে ইমরান খান স্থিতিশীল এবং শক্তিশালী অবস্থান দেখান। তিনি তার সরকারের বিরুদ্ধে মার্কিন নেতৃত্বাধীন ষড়যন্ত্র সম্পর্কে অকপটে কথা বলেছেন।  যা ইউক্রেনের যুদ্ধে রাশিয়াকে বয়কট করতে অস্বীকার করার পরপরই শুরু হয়েছিল।

পাকিস্তানের রাজনৈতিক বিশ্লেষক হোজাইফা ফরিদ বলেছেন, ইমরান খানের জন্য আত্মসমর্পণ করা বেশ কয়েকটি কারণে সহজ নয়। অন্তত ক্রিকেট হিরো হিসাবে তার জনপ্রিয়তার নিরিখে। ক্রিকেট দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা।  তিনি যোগ করেন, তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টির জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির অন্য এক কারণ, দলটি বহিরাগত হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে নিজেদের জানান দিয়েছে। 

এছাড়া সাম্প্রতিক মূল্যবৃদ্ধি, মৌলিক পণ্যের উপর ভর্তুকি অপসারণ এবং ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি এবং বেকারত্বের হার সবই খানের দলকে উপকৃত করেছে, ফরিদ ব্যাখ্যা করেছেন..

দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু কর্তৃক আমেরিকায় পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত আসাদ মজিদের মাধ্যমে খানকে পাঠানো “হুমকিমূলক চিঠি” প্রকাশের পর ইমরানের জনপ্রিয়তা আরো বেশি বাড়তে থাকে।

পাকিস্তানিরা তাকে জাতীয় স্বাধীনতার একজন রক্ষক এবং একজন নায়ক হিসেবে দেখেছিল যার লক্ষ্য ছিল দেশের উপর বহিরাগত আধিপত্যের অবসান ঘটানো।

এদিকে, পাঞ্জাব উপ-নির্বাচনের ফলাফলের পর, সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী তার অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেন বলেন, জনগণকে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করতে দেওয়ার জন্য দ্রুত নির্বাচন হওয়া উচিত।  জয়ের পর খান বলেন, “লোকেরা তাদের ভোট দিতে বেরিয়ে আসার কারণে আমরা জয়ী হয়েছি।”

“এখান থেকে এগিয়ে যাওয়ার একমাত্র উপায় হল একটি বিশ্বাসযোগ্য ইসিপি (পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনের) অধীনে সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন করা। অন্য কোনো পথ শুধুমাত্র বৃহত্তর রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং আরও অর্থনৈতিক বিশৃঙ্খলার দিকে নিয়ে যাবে,” তিনি জোর দিয়েছিলেন।

তাকে প্রধানমন্ত্রী থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করা হতে পারে এবং তার দলের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো অন্যদের সাহায্য করার প্রচেষ্টার কথাও বলেছিলেন ইমরান।  তিনি বলেন, আমি প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে নিয়ে হতাশ।  “তিনি কীভাবে এসব হতে দিলেন? তিনি ইসিপি পরিচালনার যোগ্য নন এবং একটি রাজনৈতিক দলের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করছেন।”

ঘটনাচক্রে, পাকিস্তানের বিচারবিভাগও গত তিন মাসে অনেক ক্ষেত্রে পাশে দাঁড়িয়েছে ইমরানের। শাহবাজ সরকার বলপ্রয়োগ করে ইসলামাবাদের ডি-চকের উদ্দেশে ইমরানের ‘আজাদি মার্চ’ রোখার চেষ্টা করলেও তাতে বাদ সাধে পাকিস্তানের শীর্ষ আদালত। ওই রাজনৈতিক কর্মসূচি ঘিরে অশান্তি এবং ধর্মদ্রোহের অভিযোগে ইমরানের বিরুদ্ধে মামলা হলেও তাকে গ্রেফতার না করার আদেশ দেয় আদালত।

পাকিস্তানের পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন অক্টোবর 2023 এ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা, কিন্তু খান অর্থনৈতিক অবনতি বন্ধ করার জন্য পূর্ববর্তী নির্বাচনের আহ্বান জানান।  যদি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, তাহলে ইমরান খান আবার নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছেনা। কারণ, ইমরান খান মানেই প্রত্যাবর্তন। ১৯৯২ সালে নতুন করে ফিরে পাকিস্তানকে বিশ্বকাপ জিতিয়েছিলেন তিনি। এবার হয়ত দেশকে বদলানোর পালা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here