‘আমি এসআই, হয়তো থানায় চলো নয়তো টাকা দাও’ বললেন ছিনতাইকারী যুবলীগ নেতা

0
123

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় সড়কে পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাইকালে রাহাত খান রুবেল (৩২) নামে এক যুবলীগ নেতাকে আটক করা হয়েছে।

শুক্রবার (৫ আগস্ট) সন্ধ্যার দিকে ৯৯৯-এ কল পেয়ে উপজেলার তাড়াশ-রাণীরহাট আঞ্চলিক সড়কের বারুহাসের বেরখারি এলাকা থেকে তাকে আটক করে পুলিশ।

রুবেল উপজেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক এবং তাড়াশ পৌরসভার খান পাড়া মহল্লার বেল্লাল হোসেন খানের ছেলে। এছাড়া তিনি তাড়াশ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন খানের ভাতিজা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সন্ধ্যায় সড়কে মোটরসাইকেল থামিয়ে নিজেকে তাড়াশ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হিসেবে পরিচয় দেন রুবেল। তিনি বলেন, ‌‘আমি এসআই রুবেল, তোমাদের কাছে মাদক আছে, হয় আমার সঙ্গে থানায় চলো নয়তো টাকা দাও’। এই কথা বলেই মোটরসাইকেলের চাবি নিয়ে নেন। এ সময় তার সঙ্গে আরেকজন ছিল বলেও জানা গেছে। 

তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম জানান, নাটোরের সিংড়া থেকে তাড়াশের দেশিগ্রাম ইউনিয়নের গুড়পিপুল গ্রামে বিয়ের দাওয়াতে আসা তিন কিশোর সন্ধ্যার পরে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিল। এ সময় আঞ্চলিক সড়কের বেরখারি এলাকায় পৌঁছালে তাদের মোটরসাইকেল থামান রুবেল। নিজেকে তাড়াশ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) পরিচয় দিয়ে ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেন। এ সময় মোটরসাইকেল আরোহীরা কাছে টাকা নেই জানায়। এরপর ‘বাড়িতে ফোন করে টাকা আনতে হবে’ বলে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ কল দেন। পরে পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে এবং রুবেলকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। 

তিনি আরও জানান, অভিযুক্ত থানা হেফাজতে আছেন এবং তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। 

এ বিষয়ে তাড়াশ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন খানের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও রিসিভ হয়নি।

তাড়াশ উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হোসেন আলী রুবেল বলেন, ‘উপজেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক রুবেলের বিষয়টি আমি একাধিক ব্যক্তির মুখে শুনেছি। এ নিয়ে আমি নিজেও কথা বলার জন্য সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে ফোন দিয়েছিলাম। কিন্তু তারা কেউই আমার ফোন ধরেননি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here