বিএনপির সাবেক নেতার মামলায় আসামি মির্জা ফখরুলসহ ৭ নেতা

0
348

চাঁদপুর জেলা বিএনপির নতুন কমিটিকে চ্যালেঞ্জ করে তা বাতিলের দাবিতে আদালতে মামলা করেছেন স্থানীয় বিএনপির সাবেক এক নেতা। এতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কয়েকজন কেন্দ্রীয় এবং জেলা কমিটির নেতাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে চাঁদপুর সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. রাফিউস সাহাদাত ওয়াসীম পাটওয়ারী বাদী হয়ে এই মামলাটি দায়ের করেন।

জানা যায়, চলতি বছরের ২ এপ্রিল চাঁদপুর সদর উপজেলার নানুপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জেলা বিএনপির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেই সম্মেলনে গঠিত কমিটির ফলাফল বাতিল ও পুনঃনির্বাচন ঘোষণার আদেশ চেয়ে কেন্দ্রীয় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সাতজনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মামলায় আসামিরা হলেন- বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূঁইয়া, বিএনপির কুমিল্লা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মোস্তাক মিয়া, বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক মো. সাইদুল হক সাইদ, চাঁদপুর জেলা বিএনপির সভাপতি শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. সলিমুল্লাহ সেলিম এবং উক্ত সম্মেলনের নির্বাচন কমিশনার অ্যাডভোকেট মো. শামছুল ইসলাম মন্টু

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, মামলার বাদী ৩ নম্বর বিবাদী সম্মেলনের নির্বাচন কমিশনার অ্যাড. মো. শামছুল ইসলাম মন্টু কর্তৃক প্রচারিত ফলাফল এবং কতিথ বিজয়ী ১ ও ২ নম্বর বিবাদী সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক রুপে গৃহীত সকল কার্যক্রমের উপর স্থগিতাদেশ চান।

মামলার বাদী উল্লেখিত বিবাদীদের গঠনতন্ত্র বিরোধী সকল কার্যক্রম বিস্তারিত মামলার বিবরণ উল্লেখ করেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সেলিম মিয়া জানান, মামলার বাদীর মৌখিক বক্তব্যের আলোকে অভিযোগগুলো লিপিবদ্ধ হয়। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে চলতি বছরের ২ এপ্রিল জেলা বিএনপির সম্মলনে এক হাজার ৫১৫ জন কাউন্সিলর ছিলেন। এর মধ্যে ৯৮২ জন ভোট প্রয়োগ করলেও ৮০৪ জন ভোট দেওয়ার সুযোগ পাননি। যে কারণে বাদী পুরো সম্মেলন বাতিল চান। মামলাটি আদেশের জন্য আগামী ২১ সেপ্টেম্বর ধার্য করেছেন আদালত।

অন্যদিকে আদালতে কমিটি নিয়ে মামলা সম্পর্কে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সলিমুল্লাহ সেলিম জানান, সংক্ষুব্ধ যে কেউ অভিযোগ দিতে পারেন। তবে তার গ্রহণযোগ্যতা কতটুকু তা সময়ই বলে দেবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here